জিয়া চ্যারিট্যাবল ট্রাস্ট মামলার অসমাপ্ত যুক্তিতর্ক

52

রংপুরবার্তা:আজ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে অবশিষ্ট যুক্তিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। আদালত আসামিপক্ষকে অসমাপ্ত যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য এ নির্দেশ দেন। এ নিয়ে মামলায় আসামি পক্ষ চতুর্থ দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছেন।

বুধবার দুপুরে  রাজধানীর বকশীবাজার আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান এ আদেশ দেন।

এদিন খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী আব্দুর রেজ্জাক খান যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। এরপর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু করেন। আগামীকাল তিনি অসমাপ্ত যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করবেন।

এরপর ধাপে ধাপে বিএনপি নেত্রীর পক্ষে এ জে মোহাম্মদ আলী ও ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার যুক্তি উপস্থাপন করবেন বলে জানা গেছে।

এর আগে দুদকের পক্ষে আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন। এতে খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা চেয়েছেন তিনি।

পক্ষান্তরে, ‘আশা করি খালেদা সকল অভিযোগ থেকে খালাস পাবেন। এই মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদনের সময়েই খালেদা জিয়াকে অব্যাহতি দেওয়া উচিত ছিল’ বলে মন্তব্য করেছেন খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনকারী আইনজীবী আব্দুর রেজ্জাক খান।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টা ২৫ মিনিটে খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে শুরু হওয়া যুক্তিতর্ক টানা প্রায় পৌনে দু’ঘণ্টা চলার পর বেলা ১টা ২০ মিনিটে এক ঘণ্টার বিরতি দেয়া হয়। বেলা আড়াইটায় ফের শুরু হয়ে পৌনে চারটার দিকে যুক্তিতর্ক মুলতবি করা হয়।

এ সময় সোনালী ব্যাংকের কোনো ডকুমেন্ট আদালতে প্রদর্শিত হয়নি, কোনো সাক্ষী মূল ডকুমেন্টগুলো দেখেছেন এমন কোনো সাক্ষ্যও দেয়নি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার যুক্তিতর্কে খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুর রেজ্জাক খান প্রথমেই দুদকের ১৩তম সাক্ষীর সাক্ষ্য খণ্ডানোর যুক্তি তুলে ধরেন। এ সময় তিনি সোনালী ব্যাংকের কোনো ডকুমেন্ট আদালতে প্রদর্শিত হয়নি জানিয়ে কোনো সাক্ষী মূল ডকুমেন্টগুলো দেখেছেন এমন কোনো সাক্ষ্য দেয়নি মর্মে আদালতকে অবহিত করেন।

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ৩ জুলাই জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে রমনা থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।