ঝন্টুর বিরুদ্ধে ব্যক্তিগত আক্রমণ ও কটাক্ষর অভিযোগ

86

রংপুর বার্তা.কম:আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী সরফুদ্দিন আহম্মেদ ঝন্টু আমাকে এবং দলের চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ স্যারকে ব্যক্তিগত আক্রমণ ও কটাক্ষ করছেন অভিযোগ তুলেছেন জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা।

বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা বলেন,আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নির্বাচন কমিশনের দেয়া কারণ দর্শানো নোটিশকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

বুধবার দুপুরে নগরীর একটি কমিউনিটি সেন্টারে ‘সংলাপে নাগরিক অগ্রাধিকার’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন দুই মেয়র প্রার্থী।

জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা সাংবাদিকদের বলেন, জাপা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ এবং আমাকে নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আপত্তিকর কথাবার্তা বলছেন। লাঙলে ভোট না দিতে লিফলেট বিতরণ করায় তিনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করছেন। কারণ কোনো প্রার্থী বা দলের বিরুদ্ধে আক্রমণ করা নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন।এ ব্যাপারে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিফলেট পৌঁছে দেয়া হয়েছে। আশা করি, তিনি ব্যবস্থা নেবেন।

মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, ব্যক্তিকে আক্রমণ করে ও দলের বিরুদ্ধে কথা বললে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ থেকে সংঘাতের সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছি।

সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী এবং নির্বাচন কমিশন আন্তরিক হলেও লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড এখনো পুরোপুরি তৈরি হয়নি মন্তব্য করেন মোস্তফা ।

কাওসার জামান বাবলা বলেন, কী কারণে তাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে তা জানি না। তবে একটি সূত্রে জানতে পেরেছি, গত সোমবার দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে একটি নির্বাচনী মতবিনিময় সভাকে ঘিরে আমাকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হতে পারে।

তিনি বলেন, প্রতীক পাওয়ার পর দলের ২৫/৩০ জন নেতাকর্মীকে নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছি। এর বাইরে কিছু হয়নি। এটাকে আচরণবিধি লঙ্ঘন বলা গণতান্ত্রিক আচরণ নয়।

এর আগে ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল’র আয়োজনে ‘সংলাপে নাগরিক অগ্রাধিকার’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে নিজেদের কর্ম পরিকল্পনা, নগর উন্নয়ন ও সম্ভাবনার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির তিন মেয়র প্রার্থী।

রিটার্নিং অফিসার ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, কোনো দলের পক্ষ থেকে লিখিত কোনো অভিযোগ পাইনি।

বিএনপি প্রার্থীকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি বলেন, আগামী তিনদিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

রসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি ছাড়াও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) আব্দুল কুদ্দুস (মই), ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন বাংলাদেশ’র এটিএম গোলাম মোস্তফা বাবু (হাতপাখা), ন্যাশনাল পিপল্স পার্টির (এনপিপি) সেলিম আখতার (আম) এবং একমাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের ভাতিজা আসিফ শাহরিয়ার (হাতী) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।