হামলার প্রতিকার চেয়ে ইসিতে চিঠি দিয়েছেন আ.লীগ

23

রংপুর বার্তা.কম;দেশের বিভিন্নস্থানে দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর বিএনপি-জামায়াতের হামলার ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) চিঠি দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। চিঠিতে হামলাকারীদের শাস্তিও দাবি করে দলটি।

সোমবার আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ চিঠি পৌঁছে দেন দলটির একটি প্রতিনিধিদল। প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন দলের কেন্দ্রীয় নেতা মো. আক্তারুজ্জামান।

চিঠিতে সুনামগঞ্জ, নোয়াখালী, কুমিল্লা, ফেনী, ঝালকাঠী, পাবনা, বগুড়া, জয়পুরহাট, ঝিনাইদহে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা, নির্বাচনী ক্যাম্প ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করার অভিযোগ করা হয়।
পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আক্তারুজ্জামান বলেন, ‘আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি, বিএনপি-ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে আমাদের দেশপ্রেমিক, পেশাদার, সুশৃঙ্খলা ও সশস্ত্র সেনাবাহিনীকে নিয়ে যে বিবৃতি প্রকাশ করা হয়েছে, তা খুবই আপত্তিজনক ও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। তারা কোনো দলের বা পক্ষের নয়। কাজেই কারও সেনাবাহিনীকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত হওয়ার কোনো কারণ বা সুযোগ নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের পেশাদার সেনাবাহিনীর একটি সার্বজনীন মর্যাদা রয়েছে। এই বাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ বা বিতর্কিত করতে পারে এমন কোনো বক্তব্য বা বিবৃতি থেকে সবাইকে বিরত থাকতে হবে। সবাই এ ধরনের বক্তব্য দেয়া থেকে বিরত থাকবে বলে আমরা আশা করি।’

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার বিষয়ে আক্তারুজ্মান বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা দেশের সর্বত্র সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও হামলা করছে। আওয়ামী লীগসহ সকল গণতান্ত্রিক দলের ও জোটের অফিস ভাংচুর করছে। তাদের হামলায় আওয়ামী লীগের পাঁচজন নেতাকর্মী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কয়েকশ’। এসব ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে বিচারের দাবি জানাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপির নেতাকর্মীরা নিজেরাই নিজেদের মধ্যে হামলা করে উল্টো নির্বাচন কমিশনে মিথ্যা অভিযোগ করছেন।’

প্রতিনিধি দলে ছিলেন, উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, কেন্দ্রীয় নেতা মারুফা আক্তার পপি, অ্যাডভোকেট রিয়াজুল কবীর কাওছার, নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য ড. সেলিম মাহমুদ প্রমুখ।